Breaking News
Home / ইসলাম / স্বাস্থ্যবিধি মেনে মাদরাসা খুলে দেয়ার আহ্বান বেফাক সভাপতির

স্বাস্থ্যবিধি মেনে মাদরাসা খুলে দেয়ার আহ্বান বেফাক সভাপতির

শরিয়াহ ও সুন্নাহভিত্তিক চললে অচিরেই করোনার প্রকোপ নিয়ন্ত্রণে আসবে বলে আশা প্রকাশ করেছেন বেফাকুল মাদারিসিল আরাবিয়া বাংলাদেশের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি,

হাইয়াতুল উলইয়ার চেয়ারম্যান ও যাত্রাবাড়ী মাদরাসার মুহতামিম মুহিউস সুন্নাহ আল্লামা মাহমুদুল হাসান।

আজ শুক্রবার (৬ আগস্ট) রাজধানীর যাত্রাবাড়ী মাদরাসা মসজিদে জুমার বয়ানে এসব কথা বলেন তিনি।

জুমার বয়ানে তিনি আরও বলেন, মাদরাসার পরিবেশ তো ভিন্ন। মাদরাসার ছাত্র তারা রাস্তায় বের হয় না।

ঘরে বসে থাকে। তাদের সাথে ঐ ছেলেদের তুলনা হয় না। তারা রাত-দিন নামাজ পড়ে।

তারা চোখের পানি ফেলে শেষ রাতে। আল্লাহর কাছে দোয়া করে। এই চোখের পানির জন্যই এই দেশ বেঁচে আছে। আর এসব মাদরাসাকে বন্ধ করে রেখেছে।

আর কত আলেম জেলের মাঝে চোখের পানি ফেলছে। এ কারণে দেশের উপর আজাব আসতেছে।

সরকারকে উদ্দেশ করে মাওলানা মাহমুদুল হাসান বলেন, ‘সরকার যদি সত্যিই কল্যাণ চায় তাহলে যেনো ইসলাম সবার জন্য সহজ করে দেয়।

অন্তত পরীক্ষামূলক চালু করতে পারে। কেননা ইসলাম শুধু ব্যক্তি জীবনের জন্য নয়। ব্যক্তি থেকে রাষ্ট্র পর্যন্ত ইসলাম চালু করা জরুরি।

তিনি বলেন, আত্মা ও শরীরের সম্পর্ক মিলে দেশ। যদি মানুষকে আত্মা বলো, তাহলে তাদের মেনে চলতে হবে। আর তুমি (সরকার) যদি আত্মা হও তাহলে জনগণকে শরীর মানতে হবে। উভয়ের সমন্বয়ে দেশে শান্তি আসতে পারে। আর নয়তো নয়।

হাইয়াতুল উলয়ার চেয়ারম্যান আরও বলেন, বিশ্ব মহামারি করোনার এই কঠিন সময়ে খেটে খাওয়া গরিব মানুষের প্রতি করুণা করতে হবে। তবেই আল্লাহর রহমত আসবে। আল্লাহর রহমত ছাড়া এই বিপদ থেকে মুক্তি অসম্ভব।

লকডাউনে যাতে কোনভাবে গরিব মানুষ নির্যাতিত না হয়, সেদিকে প্রশাসনকে গভীরভাবে লক্ষ্য রাখতে হবে। কারণ, অত্যাচারিতের কান্নায় আল্লাহর আরশ কেঁপে ওঠে। এই কঠোর লকডাউনেও যেমনিভাবে শারিরীক রোগের চিকিৎসা কেন্দ্র, চিকিৎসক ও সংশ্লিষ্ট সবকিছু বিধিনিষেধের আওতাবহির্ভূত রাখা হয়েছে,

তেমনি মন ও অন্তরের রোগের চিকিৎসা কেন্দ্র ও সংশ্লিষ্ট বিশেষজ্ঞ তথা আলেম উলামা ও এ সংক্রান্ত প্রতিষ্ঠান-মাদরাসাগুলোকেও অবিলম্বে খুলে দিয়ে জনসেবা করার সুযোগ দিতে হবে।

বেফাকের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি আরও বলেন, করোনা থেকে মুক্তির আশায় যেমন চিকিৎসা বিজ্ঞানীদের নিয়ে পরামর্শের ভিত্তিতে সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়, তেমনি কুরআন বিজ্ঞানীদের সাথে নিয়ে যৌথ পরামর্শ সভার আয়োজন করে জাতীয় গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত গ্রহণ করতে হবে।

সারাদেশের আলেম সমাজের পক্ষ নিয়ে তিনি বলেন, ‘আমি মাহমূদুল হাসান, সারাদেশের আলেম সমাজের পক্ষে বলছি, আমাদের ৪০ দিন সময় দিন ইনশাআল্লাহ আল্লাহর ইবাদতের মাধ্যমে মানুষের আত্মা পরিষ্কার করে যাবতীয় শারীরিক রোগ বালাই থেকেও দেশকে মুক্ত করে ছাড়ব, ইনশাআল্লাহ।

সরকার ও প্রশাসনকে লক্ষ্য করে তিনি বলেন, আমরা আপনাদের মহব্বত করি, আল্লাহপাক আপনাদের মহব্বত করেন বলেই দেশ পরিচালনার রাষ্ট্রীয় দায়িত্বে আপনাদের বসিয়েছেন। অতএব, আপনারা কুরআন ও সুন্নাহ অনুযায়ী দেশ পরিচালনা করুন।

তিনি আরও বলেন, মনে কত কষ্ট-দু:খ, আমি এখানে গত ৪০-৫০ বছরে একটি যুবক বাহিনী তৈরি করেছি, এটা আমি মানুষের কাছেও বলি, এখানেও বলি, তাদের অনেকে বৃদ্ধও হয়ে গেছেন।

এমন মানুষও আমি তৈরি করেছি, যারা রাত-দিন বুঝেনি। খাওয়া-দাওয়া দুইদিন যাবত নেই। তবু কারো বাড়িতেই যায়নি।

তিনি বলেন, আমি চেয়েছি এ এলাকাটি মডেল হয়ে যাক। আমি চেয়েছি শতকরা ৯৫% যুবক সেজদায় পড়ে আল্লাহর কাছে দোয়া করুক।

এ সময় তিনি রাসূলে কারীম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের এর মৃত্যুর সময়ের একটি ঘটনা উল্লেখ করেন। যেখানে সাহাবায়ে কেরামকে নামাজে দাঁড়ানোর কাতারে দেখে তিনি মুচকি হেসেছিলেন।

About Muktopata

Check Also

তাহাজ্জুত নামাজের পর হাফেজ নাইমুল ইসলাম ইন্তেকাল

হাফেজ নাইমুল ইসলাম নামে এক মাদরাসা শিক্ষার্থী ইন্তেকাল করেছেন। ইন্নালিল্লাহি ওয়াইন্না ইলাইহি রাজিউন। বুধবার ভোরে …