Breaking News
Home / জাতীয় / মামুনুল হকের ‘চ’তুর্থ বিয়ে’ নিয়েও ‘কিছু ত;থ্য’ পাওয়া গেলো

মামুনুল হকের ‘চ’তুর্থ বিয়ে’ নিয়েও ‘কিছু ত;থ্য’ পাওয়া গেলো

রি’মা’ন্ডে তাকে মা’মলা সংশ্লিষ্ট প্রশ্ন করা হলেও ঘুরে’ফিরে আসছে ২৬ মার্চসহ বেশ কয়ে’কটি নাশ’কতার ঘটনার প্র’সঙ্গ। এসব বিষয়েও জিজ্ঞা’সাবাদ করা হচ্ছে তাকে। পাশা’পাশি মামুনুল হকের ‘চতুর্থ বিয়ে’র বিষয়েও ‘কিছু তথ্য’ মিলেছে।  গত ১৮ এপ্রিল রাজধানীর মোহাম্মদপুরের জা’মিয়া রাহমানিয়া মাদ’রাসা থেকে মামুনুল হককে গ্রে’ফ’তার করা হয়। ১৯ এপ্রিল তাকে একটি মা’ম’লায় সাত দিনের রি’মা’ন্ডে নেয়া হয়।

পুলি’শ জানিয়েছে, ২০১৩ সালের ৫ মে মতি’ঝিলের শাপলা চ’ত্বরে হেফাজতে ইসলামের তাণ্ডব’সহ বিভিন্ন ঘটনায় ১৭টি মা’ম’লা রয়েছে মামুনুল হকের বি’রু’দ্ধে। এছাড়া স্বাধীনতার সুবর্ণ’জয়ন্তী উপলক্ষে সম্প্রতি ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির বাংলাদেশ সফরবিরোধী আ’ন্দো’লনের সময় সহিংসতার মূল’হোতা হিসেবেও মামুনু’লের বি’রু’দ্ধে একা’ধিক মা’মলা রয়েছে।

তদন্ত কর্মক’র্তারা বলছেন, রিমা’ন্ডে মামুনুলকে মা’মলা সংশ্লিষ্ট প্রশ্ন করা হলেও ঘুরে-ফিরে আসছে স্বাধী’নতার সুব’র্ণজয়’ন্তী ঘিরে নাশকতাসহ বেশ কয়েক’টি সহিংসতার ঘটনা। এসব বিষয়েও জিজ্ঞা’সাবাদ করা হচ্ছে তাকে। সাত দিনের রি’মা’ন্ডের তৃতীয় দিন বৃহস্পতিবার (২২ এপ্রিল) জি’জ্ঞা’সাবাদে একের পর এক চাঞ্চ’ল্যকর তথ্য দিচ্ছেন তিনি।

আইন-শৃঙ্খলা বাহি’নীর দায়িত্ব’শীল সূত্র জা’নায়, মামু’নুলকে পুলি’শের একা’ধিক ইউনিট বিভিন্ন মা’ম’লায় জি’জ্ঞাসা’বাদ করেছে। রি’মা’ন্ডে আনার পর  মোহাম্মদ’পুর থা’না পুলি’শ তাকে জি’জ্ঞা’সাবাদ করছে। তবে তদ’ন্তের পরি’প্রে;ক্ষিতে প্রসঙ্গ’ক্রমে ২৬, ২৭ ও ২৮ মার্চে হেফা’জতের নাশ’কতার বিষয়টি উঠে আসে।

তদন্ত সংশ্লিষ্ট একজন কর্মকর্তা রিমা’ন্ডে তাকে জি’জ্ঞেস করেন, ‘সরকারের শী’র্ষ মন্ত্রী-এমপিদের নিয়ে সমালোচনা করছেন, তাদের ‘জুতাপেটা’ করার ঘোষণা দিয়েছেন। সেকথাগুলো ওয়াজ মাহফিলে বলে এবং বিভ্রান্তিকর বার্তা দিয়ে কওমি মাদরাসার কোমলতি শিশু’দের আক্র’মণা’ত্মক করেছেন।  এই ঘ’টনার দায় তো আপনি এড়াতে পারেন না। আপনার উস;কানিতে নাশক’তাগুলো হয়েছে’। জবাবে মামুনু’ল হক বলেন, ‘যে’হেতু আমি নেতা, আমি তো দায় এড়াতে পারিই না’।

সূত্র জানায়, রি’মা’ন্ডে মামুনুলের কাছে তার পারি’বারিক জীবন, শিক্ষ;কতাসহ নানা বিষয়ে জানতে চাওয়া হয়। পুলি’শের সব প্রশ্নে অকপটে উত্তর দিয়েছেন মামুনুল। কোনো প্রশ্ন তাকে দুইবার জি’জ্ঞেস করতে হয়নি।  গোয়ে’ন্দা সংস্থার একটি ইউনিট জানায়, দী’র্ঘদিন ধরে তারা মামুনুল হকের বিষ’য়ে ছায়া তদন্ত করছে। তদন্তে তারা মামুনু’লের ‘চতুর্থ বিয়ে’র বিষয়ে ‘কিছু তথ্য’ পেয়েছে। তবে সে বিষয়ে এখনই সরা’সরি বক্তব্য দিতে চাইছে না তারা।

রিমান্ডে জি’জ্ঞাসা’বাদের বি’ষয়ে সরা’সরি কিছু না বললেও তদ’ন্তের বিষয়ে তেজ’গাঁও বিভা’গের উপ-কমিশনার (ডিসি) মো. হারুন-অর-রশিদ সাংবাদি’কদের বলেন, সাধারণ মানু’ষকে উসকানি, সরকারকে বিদায় করা, মন্ত্রী’দের কটূ’ক্তি করার বিষয়’গুলো নিয়ে আমরা তদন্ত করছি।  এছাড়া এসব কাজে তাকে (মামুনুল) দেশ বা দেশের বাইরে থেকে কেউ প্যাট্রো’নাই’জ (পৃষ্ঠ’পোষকতা) করছে কি-না, অর্থ দিয়ে বাংলাদেশকে পাকি’স্তান বা আফগা’নিস্তান বানানোর প্রচে’ষ্টা হচ্ছে কি-না, সবকি’ছুই আমাদের তদন্তে আসবে। 

মাদরাসা পরিচালনায় আয়-ব্যয়ে অনিয়’মআইন-শৃঙ্খলা বাহিনী বলছে, মামুনুল হকসহ হেফা’জতের ইসলা’মের শীর্ষ নেতাদের পরিচালিত কওমি মাদরাসায় ব্যাপক অনিয়ম পেয়েছে তদন্ত দল।  তদন্ত সংশ্লিষ্ট একজন কর্মকর্তা বলেন, হেফাজতে ইসলামে খেলাফতে মজলিসের বেশ কিছু নেতা রয়েছেন। এই দুই দলের নেতারা নিজেদের মধ্যে মাদরাসা পরিচালনার দায়িত্ব ভাগ-বাটোয়ারা করে নিয়েছেন। তাদের মধ্যে একজন ছিলেন খেলাফতে মজলিসের আমির আল্লামা আজিজুল হক। তিনি বিএনপির নেতৃত্বাধীন চার দলীয় জোট ক্ষমতায় থাকাকালে মোহাম্মদপুরের জামিয়া রাহমানিয়া আরাবিয়া মাদরাসার দায়িত্ব নেন।  তবে আদালত যখন মাদরাসাটির জন্য একটি স্বতন্ত্র বোর্ড করতে বলেন এবং এটি নিশ্চিত করতে একজন ম্যাজিস্ট্রেট নিয়োগ করেন, তখন আজিজুল হক মাদরাসাটি পরিচালনার দায়িত্ব দেন তার ছেলে মামুনুল হককে।

সূত্র জানায়, মামুনুলসহ হেফাজতের নেতারা এভাবে যাত্রাবাড়ী, বারিধারা, লালবাগের বেশ কয়েকটি মাদরাসা পরিচালনা করছেন। এসব মাদরাসার আয়-ব্যয়ে ব্যাপক গরমিল পাওয়া গেছে। 

এসব মাদরাসায় মধ্যপ্রাচ্য থেকে যেসব অনুদান এসেছে, সেগুলোর বিস্তারিত তথ্যাদিও নেই। পাশাপাশি মাদরাসাগুলো অবৈধভাবে বিদ্যুৎ, গ্যাস ও পানির সংযোগ নিয়ে বছরের পর বছর বিল পরিশোধ না করেই পরিচালনা করা হচ্ছে। শক্ত প্রমাণাদি পেলে এসব বিষয়েও মা’মলা করবে পুলি’শ।  স্বাধীন’তার সুবর্ণ’জয়ন্তীতে ২৬ মার্চ বাংলাদেশে আসেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। তার এ সফরের বিরোধিতায় বিভিন্ন জায়গায় বিক্ষোভ করে হেফাজত। জাতীয় মসজিদ বায়তুল মোকাররমে বিক্ষোভ থেকে সহিংসতাও হয়। পরে এর জেরে হরতাল ডাকে হেফাজত।

এসব সহিংসতায় বেশ কিছু প্রাণ ঝরে।  এই পরিস্থিতির মধ্যেই গত ৩ এপ্রিল নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁয়ে রয়েল রিসোর্টে এক নারীর সঙ্গে অবস্থান’কালে অব’রুদ্ধ হন মামুনুল হক। ওইদিন তিনি পুলি’শের জি’জ্ঞা’সাবাদে জানান, সঙ্গে থাকা নারী তার দ্বিতীয় স্ত্রী। যদিও পরে তার দ্বিতীয় বিয়ের বিষয়টি নিয়ে ব্যাপক বিতর্কের সৃষ্টি হয়।

অবরুদ্ধ হওয়ার কয়েক ঘণ্টা পরই হেফাজত নেতারা ওই রি’সোর্টে লাঠিসোটা নিয়ে ব্যাপক ভাঙচুর ও নাশকতা চালিয়ে মামুনুলকে নিয়ে যান।  পুলিশের ওপর হা’মলা ও রিসো’র্টে ভাঙ’চুরের অভিযোগে ওই ঘটনায় একাধিক মাম’লা হয়, যেখানে মামুনুলকে আসামি করা হয়।  পরে মোহাম্মদপুর থা’নায় দায়ের করা এক সাধারণ ডায়েরিতে (জিডিতে) মামুনুলের তৃতীয় বিয়ের খবর পাওয়া যায়।  দুঃখ প্রকাশ করে সম’ঝোতার প্রস্তাব হেফাজত মহাসচিবের

About Muktopata

Check Also

বাবার লাশের পাশে কান্না করা শিশুটির পরিবার পেল সহায়তা

রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে বাবার লাশের পাশে কান্না করা সাত বছরের সেই শিশুটির পরিচয় পাওয়া …