Breaking News
Home / বিনোদন / পর্যটন শহর কক্সবাজারে সমুদ্র স্নানে পাওয়া যাচ্ছে ভাড়াটে নারীসঙ্গী, দেখুন বিস্তারিতপর্যটন শহর কক্সবাজারে সমুদ্র স্নানে পাওয়া যাচ্ছে ভাড়াটে নারীসঙ্গী, দেখুন বিস্তারিত

পর্যটন শহর কক্সবাজারে সমুদ্র স্নানে পাওয়া যাচ্ছে ভাড়াটে নারীসঙ্গী, দেখুন বিস্তারিতপর্যটন শহর কক্সবাজারে সমুদ্র স্নানে পাওয়া যাচ্ছে ভাড়াটে নারীসঙ্গী, দেখুন বিস্তারিত

দেশের অন্যতম পর্যটন শহর কক্সবাজারে নানা ধরণের অসামাজিক কাজ করে উপার্জন করে লক্ষাধিক মানুষ। পর্যট’কদের বিভিন্ন টাইপের অ’নৈতিক এবং বেআইনি চাহিদা পূরণে মা’দক কিংবা যৌ’নকর্মীদের নিয়ে কাজ করা মানুষের কমতি নেই এ অঞ্চলে।

প্রতিনিয়ত এসব অবৈধ কার্যক্রম অ’ভিনব থেকে আধুনিক হচ্ছে। সম্প্রতি কক্সবাজারের একদল পর্যট’ক আইনশৃংখলা বাহিনীকে জানিয়েছে- সমুদ্র স্নানের সময় টাকা দিয়ে নারীসঙ্গী ভাড়ার বিষয়টি।

পুলিশকে তারা জানায়, ইনানি বিচে গোসলের সময় তাদেরকে তিন জন লোক বেশ কয়েকবার করে নারী সঙ্গী ভাড়া নেওয়ার প্রস্তাব রাখে।

ওই সময় বিশ হাত দূরেই দুইজন নারী স্নান করছিলেন। তাদেরকে স্নানের সময় ঘন্টা হিসেবে ভাড়া নেয়ার প্রস্তাব রাখে দালালরা।

পর্যটকরা বিষয়টিতে ক্ষিপ্ত হয়ে দালাল সুরুজ মিয়াকে পাকড়াও করে নিকটবর্তী পু’লিশ ফাঁড়িতে নিয়ে যায়। কিন্তু আধঘন্টা পরেই সুরুজ মিয়া পু’লিশের কাছ থেকে ছাড়া পেয়ে যায়।

আরো পড়ুনঃ নিজের ব্যক্তিগত ভু’লের জন্য ক্ষমা চেয়েছেন হেফাজতের কেন্দ্রীয় যুগ্ম মহাস’চিব মামুনুল হক। তিনি বলেন, আমি সবার কাছে দোয়া চাই। আমার ব্যক্তিগত অ’সাবধানতার কারণে যে ক্’রুটি-বিচ্যুতি হয়েছে। আমার অ’সাবধানতা এবং যথাযথ পদক্ষেপ গ্রহণ না করার করণে যে ক্ষ’তির সম্মুখীন ব্য’ক্তিগতভাবে হয়েছি, সেই জন্য আমি নিজেই ম’র্মাহত। আমার কারণে আজকে সেখানে অনেকে ক্ষ’তিগ্রস্ত হয়েছেন।

তাদের কাছে আমি হাত জোড় করে ক্ষমা প্রার্থনা করছি। বৃহস্পতিবার (৮ এপ্রিল) দুপুরে নিজের ভেরিফায়েড ফেসবুক পেজে লাইভে এসে তিনি এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, আমি সেদিন নারায়নগঞ্জের রয়াল রিসোর্টে যে ঘটনা ঘটেছে সেটি নিয়ে প্রশ্ন করা হয়েছে যে আমি কেন এই পরিস্তিতিতে রিসোর্টে গেলাম। হ্যাঁ আমি স্বীকার করছি যে এমন অসাবধানতাবশত সেখানে আমার যাওয়া সমীচীন হয়নি।

তবে আমি জানতাম না যে দেশের মানুষের ব্যক্তিগত নিরপাত্তা চ’রমভাবে ভে’ঙে পড়েছে। মামুনুল হক বলেন, যেভাবে একের পর এক মানুষের ব্যক্তিগত ফোনালাপ ফাঁ’স করা হচ্ছে, এটি দেশের জন্য ভালো কিছু বয়ে আনবে না। মাওলানা রফিকুল ইসলামকে গ্রে’ফতার করে তার নামেও অ’পবাদ দেয়া হয়েছে। তিনি বলেন, এই যে এতোগুলো ফোনালাপ ফাঁ’স করা হলো তাতে কি প্রমাণ মিলেছে যে সে আমার বিবাহিতা স্ত্রী নয়?

অথচ শুধু শুধু আমার একান্ত ব্যক্তিগত কথাগুলো কোন উদ্দেশ্যে ফাঁ’স করা হলো? মামুনুল হক বলেন, ইসলামে চারটি বিয়ের অনুমোদন দেয়া হয়েছে। দেশের আইনেও একাধিক বিয়েতে বা’ধা নেই।

কাজেই আমি দ্বিতীয় বিয়ে করেছি এতে কার কী? তিনি বলেন, যদি আমি স্ত্রীদের কোনো অধিকার থেকে ব’ঞ্চিত করে থাকি, তবে আমার বি’রুদ্ধে আমার পরিবার অ’ভিযোগ দিতে পারে। কিন্তু আজ পর্যন্ত কেউ কি দেখাতে পারবে যে আমার পরিবার কোনো বি’ষয়ে আমার বি’রুদ্ধে কোনো অ’ভিযোগ দিয়েছে? সুত্রঃ কালের কণ্ঠ

About Muktopata

Check Also

এবার উগান্ডার ভাষায় গাইলেন হিরো আলম

এবার উগান্ডার ভাষায় গান নিয়ে আসছেন হিরো আলম। আগামী বৃহস্পতি কিংবা শুক্রবার গানটি প্রকাশ করা …